সাতক্ষীরা সকাল ৬:০৪ সোমবার , ৪ মার্চ ২০২৪
  • ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ ৮ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি
    1. অর্থনীতি
    2. আইসিটি
    3. আন্তর্জাতিক
    4. আশাশুনি
    5. উপকূল
    6. কলারোয়া
    7. কালিগঞ্জ
    8. খেলার খবর
    9. জাতীয়
    10. জেলার খবর
    11. জ্বালানি
    12. তালা
    13. দেবহাটা
    14. বাণিজ্য
    15. বিনোদন
    আজকের সর্বশেষ সবখবর

    হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের ম্যানেজারকে ঘুস দিয়েও ঋণ না পাওয়ার অভিযোগ

    Editor
    মার্চ ৪, ২০২৪ ৯:৩০ পূর্বাহ্ণ
    Link Copied!

    ডেস্ক রিপোর্ট: সাতক্ষীরা হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের ম্যানেজারকে ঘুস দিয়েও ঋণ না পেয়ে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা প্রত্যাখ্যান করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এক বীর মুক্তিযোদ্ধা।

    রোববার (৩ মার্চ) দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কলারোয়ার গয়ড়া গ্রামের মৃত ইছাহক মোড়লের ছেলে বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শাহাজান আলী।

    লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে জাতির জনকের ডাকে জীবন বাজি রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করি। সাতক্ষীরা শহরের বিনেরপোতা বিসিকে আমার নিজস্ব সম্পত্তিতে একটি তারকাঁটার কারখানা করেছিলাম। সেসময় বিসিক ঋণ দিয়েছিল সাড়ে ৬ লাখ টাকা। অর্থের অভাবে কারখানা চালাতে না পারায় জোরপূর্বক আমার কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা আদায় করে বিসিক। এজন্য আমার জমি বিক্রি করে তাদের ঋণ পরিশোধ করেছি।

    এছাড়া গোপিনাথপুরে আমার নামীয় আরও ৫ শতক জমি সড়ক বিভাগ কোনো টাকা পায়সা না দিয়ে দখল করে নিয়েছে। এরপর শহরের আমতলা মোড়ে আমার নিজস্ব জমি থাকলেও কোনো বাড়ি ছিল না। আমি আমার সর্বস্ব দিয়ে একটি ২তলা বাড়ি নির্মাণ করলেও বাড়ির কাজ সম্পন্ন করতে পারিনি আর্থিক সংকটে। যে কারণে আমি বিভিন্ন ব্যাংকে হাউজ লোনের জন্য আবেদন করলেও লোন গ্রহণ করতে পারিনি।

    পরবর্তীতে বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন সাতক্ষীরা শাখায় আবেদন করি। কর্পোরেশনের ম্যানেজার আশিস মন্ডল আমাকে লোন দেওয়ার জন্য আশ্বস্ত করেন। দুই বছরে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কাগজপত্র চাইলে আমি তা সরবরাহ করি। এছাড়া ৪তলা ভবন পরিপূর্ণ করার জন্য ঋণের আশ্বাস দিয়ে আমার কাছে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা দাবি করেন ম্যানেজার আশিস। আমি সাতক্ষীরা শাখার ম্যানেজারকে ১ লাখ টাকা প্রদান করি। কিন্তু দুই বছর পর একটি চিঠি পাঠিয়ে তিনি আমাকে জানান এ মুহূর্তে কোনো লোন দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না এবং আমাকে ৪০ হাজার ফেরত দিয়ে বাকি ৬০ হাজার টাকা খরচ হয়ে গেছে বলে জানান। এটা কি মগের মুল্লক?

    আমি বীর মুক্তিযোদ্ধা জীবিত অবস্থায় সম্মান পাচ্ছি না। রাষ্ট্রীয় সহযোগিতা পাচ্ছি না। এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের কাছে বরাবার লিখিত অভিযোগ দায়ের করলেও কোনো ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। তাহলে মৃত্যুর পরে সম্মাননা দিয়ে আমি কী করবো? আমি মৃত্যুর পরের রাষ্ট্রীয় সম্মাননা প্রত্যাখ্যান করছি।

    তিনি সাতক্ষীরা হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের ম্যানেজারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

    এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।